মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০৪:৪২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
সারা দেশে খাদ্য গুদামগুলো ডিজিটালাইজড করা হচ্ছে প্রকৃত শিক্ষা সৎ ও নিষ্ঠার সাথে জীবন যাপন করতে শেখায়: এমপি কায়সার ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হবে: গোলাম দস্তগীর গাজী এমপি বন্দরে কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা পুষ্টি উন্নয়ন ও দারিদ্র হ্রাসকরণের লক্ষ্যে আড়াইহাজারে মাশরুম চাষ দিবস অনুষ্ঠিত পুলিশ সদস্যের কাছে ২ লাখ টাকা নিয়ে গেলেন অজ্ঞানপার্টির সদস্য সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের মানববন্ধন ও মিছিল, বাজেট প্রত্যাখ্যান দুর্নীতিবাজকে সরাসরি দুর্নীতিবাজ বলতে শিখুন: দুদক কমিশনার জীবন একটাই, এ জীবন নিয়ে চিকিৎসার নামে হয়রানি মেনে নেয়া হবে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী র‌্যাব পরিচয়ে ৫২ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় গ্রেপ্তার ৪

সিদ্ধিরগঞ্জে টেনশন গ্রুপের হাতে যুবক অপহরণ: মুক্তিপণ দাবী

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি
  • Update Time : বুধবার, ২২ মে, ২০২৪
  • ২৮ Time View
Tantion Grop সিদ্ধিরগঞ্জে টেনশন গ্রুপের হাতে যুবক অপহরণ: মুক্তিপণ দাবী
41 / 100

সিদ্ধিরগঞ্জের আলোচিত কিশোর গ্যাং টেনশন গ্রুপ নেতা রাইসুল ইসলাম সীমান্তের বিরুদ্ধে এবার এক যুবককে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবির অভিযোগ করেছে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায়। রাইসুল ইসলাম সীমান্ত নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ২নং ওয়ার্ডের স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা শফিকুল ইসলাম শফিকের ছেলে। বুধবার (২২ মে) সকালে সাদমান চৌধুরী (২১) নামের এক যুবক দুজনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত ১০ জনের বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযুক্তরা হলেন- ঢাকার তানভীর আহমেদ মাহির (১৯) ও রাইসুল ইসলাম সীমান্তসহ আরও ১০ জন। ভুক্তভোগী সাদমান চৌধুরী ঢাকার লালবাগ থানার ইস্কান্দার চৌধুরীর ছেলে।

কিশোর গ্যাং টেনশন গ্রুপের প্রধান সীমান্ত ও তার বাহিনীর বিরুদ্ধে নানা অপকর্মের অবিযোগ দীর্ঘদিনের। ২৪ মার্চ রাইসুল ইসলাম সীমান্তসহ কিশোর গ্যাংয়ের ১৭ সদস্য র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার হয়ে কিছুদিন পূর্বে জামিনে বেরিয়ে আসে।

অভিযোগমতে, অপহরণের শিকার সাদমান চৌধুরী তার বন্ধু তানভীর আহমেদ মাহিরের সঙ্গে সিদ্ধিরগঞ্জের মৌচাক এলাকায় ঘুরতে আসে। তারা সেখানে আড্ডা দেওয়ার সময়ে ‘টেনশন গ্রুপ’ লিডার রাইসুল ইসলাম সীমান্ত তার সঙ্গীয় দলবল নিয়ে তাদের আটক করে মারধর করে। মারধরের একপর্যায়ে তানভীর আহমেদ মাহির কৌশলে পালিয়ে যান। পরে সীমান্তসহ তার সহযোগীরা সাদমানকে এলোপাতাড়ি মারধর করে রক্তাক্ত জখম করেন। এরপর তাকে আটক করে তার বড় ভাইয়ের কাছে ফোন করে অর্থ দাবি করে। ঘটনা জানাজানি হলে সীমান্ত ভুক্তভোগী সাদমানের আইফোন-৭ মোবাইল, গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন এবং হাতের আংটি ছিনিয়ে রেখে দেন। প্রথম অবস্থায় সাদমানের মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নিলেও পরবর্তীকে তা ফিরে দেন।

মুক্তিপণ দাবির বিষয়ে সাদমানের ভাই শোভন বলেন, মঙ্গলবার রাতে তার ভাইকে আটক করে তারই ফোন দিয়ে আমাকে কল করে ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপণ চাওয়া হয়। পরবর্তীতে আমি অল্প কিছুক্ষণের সময় চাই তাদের কাছে। এক ঘন্টা পর জানতে পারি যে আমার ভাইকে মারধর করে সঙ্গে থাকা মোবাইল ও স্বর্ণের চেইন রেখে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

অভিযোগের তদন্তের দায়িত্ব পাওয়া সিদ্ধিরগঞ্জ থানার এসআই একেএম মনজুরুল ইসলাম জানান, আমি এখানো অভিযোগটি হাতে পাইনি, হাতে পেলে ব্যবস্থা নিবো।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Translate »